আজ ৩০শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সন্ত্রাসীদের টার্গেট যখন যানবাহন চালক ও ব্যবসায়ীরা

নুরুল আলম:: পার্বত্য চট্টগ্রাম বিশেষ করে খাগড়াছড়িতে আঞ্চলিক সংগঠনের সন্ত্রাসীরা একের পর এক যানবাহন চালক ও ব্যবসায়ীদের টার্গেট করে অপহরণ করছে, হত্যা করছে। এর সর্বশেষ শিকার হয়েছে খাগড়াছড়ির কাঠ ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম রাসেল (২৭)। ২ মাস ২৫দিন অতিবাহিত হওয়ার পরও আজও উদ্ধার হয়নি অপহৃত রাসেল। যেকারনে পার্বত্যাঞ্চলে সাধারণ বাঙ্গালিরা ভয় আর আতঙ্কের মধ্যেই জীবন যাপন করতে হচ্ছে। এসব সমস্যা থেকে পরিত্রাণ চান পার্বত্য এলাকায় বসবাসকারী বাঙ্গালীরা।

অপহরণের ২ মাস ২৫ দিনেও উদ্ধার হয়নি খাগড়াছড়ির কাঠ ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম রাসেল (২৭)। এতো দিনে কি ঘটেছে তার ভাগ্যে তা নিয়ে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা বেড়েই চলেছে পরিবার-পরিজনের। এতো সবের পরও রাসেলকে ফিরে পেতে আকুতির শেষ নেই তার ভাইসহ স্বজনদের। গত ৯ নভেম্বর ২০২৩ দুপুরের পর তাকে খাগড়াছড়ির আট মাইল এলাকার রুচি চন্দ্র কারবারীপাড়া এলাকা থেকে তাকে অপহরণ করে দুস্কৃতিকারী।

২০২০ সালের ৩ মার্চ মঙ্গলবার রাত দশটায় ভাড়ায় চালিত মোটর সাইকেলে যাত্রী হিসেবে গুইমারা উপজেলার আমতলী নামক সীমান্তবর্তী এলাকায় সন্ত্রাসীরা চালক আকিব উদ্দিন রাকিবকে (২২) নিয়ে যায়। এসময় রাকিবকে হত্যা করে মাটিতে পুঁতে রেখে মোটর সাইকেল নিয়ে পালিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। নিহত চালক রাকিব গুইমারা উপজেলার কালাপানি এলাকার ইকবাল হোসেনের ছেলে।

এই ঘটনায় মহালছড়ি থানার পুলিশ (৪ মার্চ ২০২০) গভীর রাতে সাচিং মারমা(২২) ও অংচিং মারমা(২৫) নামে দুই যুবককে রাকিবের মোটর সাইকেলটিসহ আটক করে গুইমারা থানা পুলিশে সোপর্দ করে। সাচিং মারমা রামগড় উপজেলার পূর্ণ কার্বারি পাড়ার মংথুইজ্ঞা মারমার ছেলে এবং অংচিং মারমার বাড়ি গুইমারা উপজেলার হেডম্যানপাড়ায়। আটককৃতদের জবানবন্দি অনুযায়ী, (৫ মার্চ ২০২০) দুপুরে সিন্দুককছড়ি ইউনিয়নের আগবাড়ি এলাকা থেকে নিহত চালকের লাশ উদ্ধার করা হয়।

ঘটনাটি ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৭ সালের। খাগড়াছড়ির গুইমারায় ছাত্রদল কর্মী মোটরসাইকেল চালক রবিউল ইসলামের(২৫) লাশ উদ্ধার করা হয়েছিল। খাগড়াছড়ির গুইমারার সিন্দুকছড়ির দুর্গম তৈকর্মা পাড়া এলাকার ধান ক্ষেত থেকে দু’হাত পিছমোড়া বাঁধা অবস্থায় রবিউলের লাশ উদ্ধার করা হয়। সে গুইমারা উপজেলার হাজিপাড়া গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে। ঘটনার আগের দিন সোমবার দুপুরে খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর থেকে রবিউল ইসলাম নিখোঁজ ছিলেন।

খাগড়াছড়িতে যাত্রী পরিবহনের মোটরসাইকেল একটি জনপ্রিয় বাহন। ভূ প্রকৃতি এই জনপ্রিয়তার প্রধান কারণ। জেলায় অন্তত দুই হাজার বেকার যুবক ভাড়ায় মোটরসাইকেল চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করছে। কিন্তু একের পর এক যাত্রীবেশি সন্ত্রাসীদের হাতে মোটরসাইকেল চালক খুন, গুম ও অস্ত্রের মুখে মোটরসাইকেল ছিনতাইয়ের ঘটনায় এখন চালকদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

এদিকে ভাড়ায় মোটর সাইকেল চালক ছাদিকুল ইসলামকে (২৩) দুই উপজাতি মহালছড়ি বাসস্ট্যান্ড থেকে রাঙ্গামাটির ঘিলাছড়ি উদ্দেশ্যে ভাড়া করে নিয়ে যাওয়ার পর ছাদিকুল ইসলাম নিখোঁজ হন। তিনদিন পর ১৩ এপ্রিল ২০২৩ বিকালে রাঙামাটির নানিয়াচর উপজেলার ঘিলাছড়ি এলাকায় ছাদিকুল ইসলামের ক্ষতবিক্ষত লাশ মাটি চাপা দেওয়া অবস্থায় পাওয়া যায়। নিহত ছাদিকুল ইসলামের বড় ভাই রফিকুল ইসলাম জানান, দুই উপজাতি লোক ১০ এপ্রিল ২০২৩ সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার সময় মহালছড়ি বাসস্ট্যান্ড থেকে তার ভাইকে রাঙ্গামাটির ঘিলাছড়ি উদ্দেশ্যে তাকে ভাড়া করে নিয়ে যায়।

নিখোঁজ হওয়ার চারদিন পর চলতি বছরের ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ দুপরে খাগড়াছড়ি আলুটিলা পর্যটন কেন্দ্রের রিছাং ঝর্না এলাকার দুর্গম পাহাড় থেকে মাটিরাঙ্গার মেটরসাইকেল চালক আজিজুল হাকিম শান্ত’র লাশ পায় পুলিশ।

২০১৬ সালের ২৭ জুন নিখোঁজ হন মানিকছড়ির মোটরসাইকেল চালক রাজিব কান্তি দে। স্থানীয় সমীর পালের ছেলে রাজিব দুপুরে যাত্রী নিয়ে যাওয়ার পর আর ফিরেনি।

২০১৪ সালের ২ জুন খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় মোটর সাইকেল চালককে গাছের সাথে বেঁধে রেখে অভিনব কায়দায় মোটর সাইকেল ছিনতাই করেছে উপজাতীয় সন্ত্রাসীরা। ঘটনার চার ঘন্টা পর রাত সাড়ে আটটার দিকে উপজাতীয় সন্ত্রাসীদের হামলার শিকার মোটর সাইকল চালক চরপাড়ার মো: ধনা ময়িা‘র ছেলে মো: খলিলুর রহমান (২৭) কে উদ্ধার করে মাটিরাঙ্গা উপজেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

একই বছরের ৩০ জুলাই খাগড়াছড়ি জেলার মহালছড়ি থেকে চন্দন ত্রিপুরা (২৪) নামে ভাড়ায় চালিত এক মোটরসাইকেলে চালককে অপহরণ করেছেন অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা। উপজেলার গামারীঢালা এলাকা থেকে তাকে অপহরণ করা হয়।

২০১১ সালের ১০ জুন খাগড়াছড়ি জেলার রামগড় উপজেলার জালিয়াপাড়ার মাহবুব নগর এলাকায় মোটরসাইকেল চালক নিজাম উদ্দিন সোহাগকে হত্যা করে মোটরসাইকেল ছিনিয়ে নিয়ে সন্ত্রাসীরা। সে গুইমারা উপজেলার কালাপানি এলাকার বাসিন্দা সালেহ আহমেদের ছেলে।

২০১৬ সালের ২৬ এপ্রিল থেকে নিখোঁজ আছেন পানছড়ি উপজেলার মোটর সাইকেল চালক হোসেন আলী। সে পানছড়ি উপজেলার ৫নং উল্টাছড়ি ইউপির জিয়ানগর গ্রামের মনসুর আলীর ছেলে। তার ব্যবহৃত মোটর সাইকেলটি মাটিরাঙ্গা সদর ইউপির ৫নং ওয়ার্ডের ব্রজেন্দ্র কার্বারী পাড়ার নির্জন এলাকা থেকে পুলিশ পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্বার করলেও হোসেন আলীর সন্ধান মেলেনি।

২০১৬ সালের ৬ ফেব্রুয়ারী থেকে নিখোঁজ আছেন মানিকছড়ির মোটরসাইকেল চালক মো. মোরশেদ আলম। সে উপজেলার বড়ডলু মাস্টার পাড়ার বাসিন্দা মো. জয়নাল আবেদীনের পুত্র। মোরেশেদ আলম প্রতিদিনের ন্যায় মোটরসাইকেল নিয়ে যাত্রী পরিবহনে যান। কিন্তু ঐদিন রাতে বাড়ীতে ফিরে না আসায় থানায় সাধারন ডায়েরী করা হয়।

পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী মজিবুর রহমান খাগড়াছড়িতে সম্প্রতি রাসেল অপহরণের ঘটনায় এক বক্তব্যে তিনি বলেন, পাহাড়ে শত কোটি টাকার চাঁদাবাজী হলেও তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। যার ফলে খুন অপহরণের স্বর্গরাজ্যে পরিনত হয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রাম। এসময় তিনি খোভ প্রকাশ করে এসব সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণসহ অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের জোর দাবি জানায়।

এবিষয়ে গুইমারা থানার অফিসার ইনর্চাজ আরিফুল আমিন জানায়, সন্ত্রাসী কর্মকান্ড প্রতিহত করতে প্রশাসন সার্বক্ষণিক প্রস্তুত রয়েছে। এছাড়াও আগের তুলনায় প্রশাসনিক টহল দল বৃদ্ধি করা হয়েছে। সুনিদিষ্ট তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড প্রতিহত করা হবে।

 

Share

এ ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এ ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ

You cannot copy content of this page